আইন ও বিচারখুলনাজেলা সংবাদসারাদেশ

স্কুলশিক্ষক হত্যা মামলায় পলাতক ৪ আসামি গ্রেফতার

কুষ্টিয়ায় রবিউল ইসলাম নামের এক স্কুলশিক্ষক হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সাজাপ্রাপ্ত ৪ জন পলাতক আসামিকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। সোমবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) রাত ৩টার সময় ঢাকা, মাদারিপুর এবং কুষ্টিয়া থেকে ওই চারজনকে গ্রেফতার করা হয়।

মঙ্গলবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) বিকাল ৪টার দিকে র‍্যাব-১২ কুষ্টিয়া ক্যাম্পের মিডিয়া কক্ষে সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে র‍্যাব-১২ কুষ্টিয়া ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার স্কোয়াড্রন লিডার মোহাম্মদ ইলিয়াস খান সাংবাদিকের এসব তথ্য জানান।

গত ২৯ ডিসেম্বর ২০০৫ তারিখ স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার রঞ্জিতপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষক রবিউল ইসলাম কে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। পুর্ব শত্রুতার জের ধরে এ হত্যা কান্ড ঘটে বলে যানা যায়।

উক্ত হত্যাকান্ডের প্রেক্ষিতে নিহতের শশুর বাদি হয়ে কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ব বিদ্যালয় ( ইবি) থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। উক্ত মামলার তদন্ত শেসে তদন্ত কারি কর্মকর্তা আসামিদের বিরুদ্ধে ২০০৬ সালের ৩১ আগষ্ট আদালতে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পত্র দাখিল করেন। মামলার বিচারিক কার্যক্রম শেষে ২০২৩ সালের ০৩ জানুয়ারি কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত -১ এর বিজ্ঞ বিচারক ০৭ জন আসামি কে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং ২৫,০০০ হাজার টাকা জরিমানা করে রায় প্রদান করেন। হত্যাকান্ডের পর থেকেই আসামি গণ আত্মা গোপনে চলে যায়। সাজাপ্রাপ্ত একজন আসামি রোগাক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করে।

 

গ্রেফতারকৃত আসামি ফিরোজ এবং সবুজ হত্যা কান্ডের পর ঘর – বাড়ি এবং সম্পত্তি বিক্রি করে মাদারীপুর চলে যায়। সেখানে তারা নিজেদের নাম ঠিকানা পরিবর্তন করে নতুন আইডি কার্ড তৈরি করে বসবাস করছিল। দেলবার ও নিজের জমা জমি বিক্রি করে কুষ্টিয়া পোড়াদহে বাড়ি তৈরি করে মধু চাষি হিসেবে জীবন যাপন করছিল। অপর আসামি হেলাল ঢাকার উত্তরায় টাইলস মিস্ত্রি হিসেবে কাজ করতো।

আদালতে রায় ঘোষণার পর থেকেই র‌্যাব-১২ কুষ্টিয়া ক্যাম্পের সদস্যরা এ মামলার আসামিদের ধরতে কাজ শুরু করে। পরে মাদারীপুর র‌্যাব-০৮ সিপিসি-০৩ এর সহযোগিতায় আসামিদের গ্রেফতার করা হয়। পরে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button