বিনোদন

শিল্পী ও কলাকুশলীরা নির্মাতার অলংকার- লাজুক

আমার দৃষ্টিতে একজন পরিচালকই প্রকৃত হিরো। কাজের ক্ষেত্রে সকল শিল্পী ও কলাকুশলীরা নির্মাতার অলংকার মাত্র। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি আমরা সেই জায়গাটা হারিয়ে ফেলেছি। কথাগুলো বলছিলেন সময়ের ব্যস্ত ও মেধাবী নির্মাতা রাশেদা আক্তার লাজুক। নির্মাতাদের উন্নয়ন, সংগঠনকে এগিয়ে নেয়া ও সার্বিক বিষয় বিবেচনা করেই এবার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচন করেন টেলিভিশন নাটক নির্মাতাদের সংগঠন ‘ডিরেক্টরস গিল্ড’র । এবারের নির্বাচনে ৪২ জন প্রার্থীর মধ্যে একমাত্র নারী প্রার্থী ছিলেন নির্মাতা, অভিনেত্রী ও নাট্যকার রাশেদা আক্তার লাজুক। যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক পদে ২২০ ভোট পেয়ে জয় পেয়েছেন তিনি। আর ২০২৩-২০২৫ মেয়াদে ‘ডিরেক্টরস গিল্ড’র সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন অনন্ত হীরা ও সাধারণ সম্পাদক পদে জয় পেয়েছেন কামরুজ্জামান সাগর।

বিজয়ী হয়ে উচ্ছ্বসিত কণ্ঠে লাজুক বলেন , নির্মাতাদের কল্যাণে কাজ করতে চাই। পরিচালক হচ্ছে ক্যাপ্টেন অব দ্যা শিপ। সেই ক্যাপ্টেনই তো নিরাপদ গন্তব্যে নিয়ে যাবেন। সেই পরিচালকদের স্বার্থ সংরক্ষণ, সম্মান এবং কাজের স্বাধীনতার জন্য এ নির্বাচন করেছি ও জয় পেয়েছি। সদস্যরা যে আমাকে ভালোবাসে তার প্রমাণ আমি বিগত দিন যেমন পেয়েছি এবার আবারও তারা প্রমাণ করে দিলেন আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করে। আমি নিজেও জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী ছিলাম।

একমাত্র নারী বিজয়ী প্রার্থী লাজুক আরও বলেন, যারা আমাকে ভালোবেসে ভোট দিয়েছে, পাশে থেকেছে, দোয়া করেছে সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ। সদস্যরা আমাকে তাদের ভালোবাসায় রেখেছে। সদস্যদের ভালোবাসা নিয়েই তাদের স্বার্থ রক্ষায় কাজ করব। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন।

এরআগে, শুক্রবার (১০ মার্চ) সকাল ৯টা থেকে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে। বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত সদস্য নির্মাতারা পছন্দের প্রার্থীদের ভোট দিয়েছেন। প্রধান নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করছেন আব্দুল লতিফ বাচ্চু। এবারের নির্বাচনে দুটি প্যানেল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। একটিতে রয়েছেন এস এ হক অলিক (সভাপতি) ও ফরিদুল হাসান (সাধারণ সম্পাদক), অন্যটিতে অনন্ত হীরা (সভাপতি) ও কামরুজ্জামান সাগর (সাধারণ সম্পাদক)। অলিক-ফরিদুল প্যানেল থেকে নির্বাচনে লড়েছেন রাশেদা আক্তার লাজুক।

উল্লেখ্য, এর আগেও ‘ডিরেক্টরস গিল্ড’র কমিটিতে কার্যনির্বাহী সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন লাজুক। নির্মাতাদের উন্নয়ন, সংগঠনকে এগিয়ে নেওয়া ও সার্বিক বিষয় বিবেচনা করেই এবারের নির্বাচনে অংশ নেন তিনি। জয়ের ব্যাপারে আগে থেকেই শতভাগ আশাবাদী ছিলেন লাজুক। তার ভাষ্যমতে, সদস্যরা তাকে ভালোবাসেন, সে প্রমাণ তিনি বিগত দিনে পেয়েছেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button