অপরাধআইন ও বিচারখুলনাজেলা সংবাদবাংলাদেশসারাদেশ

মসজিদের টাকা নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ৬

মসজিদের টাকার হিসাব চাওয়াকে কেন্দ্র করে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় দুই গ্রামের উভয় পক্ষের অন্তত ৬ জন আহত হয়। এমন ঘটনা ঘটেছে নড়াইল সদর উপজেলার আলোকদিয়া ঈদগাহ জামে মসজিদে।

শনিবার (১ এপ্রিল) তারাবির নামাজের পর রাত ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় জড়িত ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সদর উপজেলার আলোকদিয়া ঈদগাহ জামে মসজিদে কমিটির অনুমতি ব্যতিত কোষাধ্যক্ষ আমিনুর শিকদার মসজিদের দুটি পুরাতন সিলিং ফ্যান চার থেকে পাঁচ দিন আগে ২ হাজার ৮শ টাকায় বিক্রি করেন।

এ নিয়ে শনিবার রাতে তারাবির নামায শেষে মসজিদ কমিটির সভাপতি আবু দাউদ মোল্যা, কমিটির অনুমতি ব্যতিত কার নির্দেশে কেন সিলিং ফ্যান বিক্রি করা হয়েছে কোষাধ্যক্ষ আমিনুরের কাছে জানতে চাইলে এবং টাকার হিসাব চাইলে সভাপতির সাথে তার বাকবিতণ্ডার সৃষ্টি হয়।

পরে মসজিদের সামনে মসজিদ কমিটির সভাপতি সমর্থিত শাহাবাদ ইউনিয়নের আলোকদিয়া ও কোষাধ্যক্ষ সমর্থিত মাইজপাড়া ইউনিয়নের বোড়ামারা দুই গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায় এবং ঘটনার সাথে জড়িত চার জনকে আটক করে থানা হেফাজতে নেয়।

আহতরা হলেন—মসজিদ কমিটির সভাপতি আবু দাউদ মোল্যা সমর্থিত সদর উপজেলার শাহাবাদ ইউনিয়নের আলোকদিয়া গ্রামের সাদ্দাম হোসেন (৩০), ছিরু মোল্যা (৪২) ও রিয়াদ মোল্যা (১৬) এবং কোষাধ্যক্ষ আমিনুর শিকদার সমর্থিত ওই উপজেলার মাইজপাড়া ইউনিয়নের বোড়ামারা গ্রামের শরিফুল শিকদার (২৮), তরিকুল মোল্যা (৩০) ও ভুট্টো শিকদার (৫২)।
আহতদের নড়াইল সদর হাসপাতালে আনা হলে তাদের মধ্যে আবু দাউদ মোল্যার ছেলে সাদ্দাম হোসেনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেলে স্থানান্তর করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। বাকিরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

আটককৃতরা হলেন- সদর উপজেলার বোড়ামারা গ্রামের মৃত আবুল সিকদারের ছেলে ও মসজিদ কমিটির কোষাধ্যক্ষ আমিনুর শিকদার, আলোকদিয়া গ্রামের মৃত নিছার উদ্দিন মোল্যার ছেলে ও মসজিদ কমিটির সভাপতি আবু দাউদ মোল্যা, ইউনুচ মোল্যার ছেলে লিয়াকত মোল্যা ও আবুজার মোল্যার ছেলে মাবিবর হোসেন।
নড়াইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ওবাইদুর রহমান ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এলাকার পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button